বিজ্ঞানীরা বদলে দিয়েছেন আলোর গতি

by
Mar 26, 2015
73 Views
Comments Off on বিজ্ঞানীরা বদলে দিয়েছেন আলোর গতি
0 0

আমাদের সবার জানা আছে যে, শূন্যস্থানে আলোর গতি ধ্রুবক। আলো শূন্যস্থানে প্রতি সেকেন্ডে ৩x১০^৮ মিটার দূরত্ব অতিক্রম করে। আরও নিখুতভাবে এই বেগ প্রতি সেকেন্ড এ ২৯৯৭৯২৪৫৮ মিটার। এই আলোর বেগ এমন এক জিনিস যার সাথে পুরো পদার্থবিজ্ঞানই অঙ্গাঅঙ্গি ভাবে জড়িত, যেখানে ধরা হয়েছে আলোর গতি ধ্রুবক এবং ভরযুক্ত কোন কিছুই আলোর বেগে চলতে পারে না। শূন্যস্থানে, স্থান, কাল, পাত্র ভেদে আলোর বেগের কোন পরিবর্তন সম্ভব নয়।

অতিসম্প্রতি আলোর ধ্রুব গতিকে বদলে দেওয়ার মত খবর জানা গেছে। স্কটল্যান্ডের গ্লাসগো বিশবিদ্যালয়ের একদল গবেষক আলোর উপর কাজ করে সম্প্রতি দাবি করছেন তারা আলোর এই ধ্রুব গতিকে বিশেষ মাস্ক এর আবরণ দিয়ে কিছুটা মন্থর করে দিতে সক্ষম হয়েছেন।

এই বিশেষ গবেষণায় তারা দু’ধরনের আলোক কণা শূন্যস্থানের মধ্য দিয়ে প্রেরণ করেছেন। প্রথম ধরনের আলোক বা ফোটন কণাগুলোকে একটি বিশেষ ধরনের মাস্ক এর আবরণ লাগিয়ে তাদের আকৃতি পরিবর্তন করা হয়েছে। আরেক ধরনের কণা হল স্বাভাবিক আলোক কণা যাদের কোন পরিবর্তন ঘটানো হয় নি।

এই দুই ধরনের ফোটন কণাগুলোকে পৃথক উপায়ে শূন্য স্থানে প্রেরণ করে তারা যে রেজাল্ট হাতে পেয়েছেন, তাতে দেখা গেছে – যে কণাগুলোর আকৃতির পরিবর্তন ঘটানো হয়েছে সেই কণাগুলো সাভাবিক আলোক কণাগুলোর তুলনায় কিছুটা দেরী করে নির্দিষ্ট দূরতব অতিক্রম করে।

এই গবেষণায় সিস্টেমের মধ্যে সম্পন্ন করেছেন তার নাম দিয়েছেন “রেস ট্র্যাক” (Race Track) যা আলোক কণাগুলো কত সময়ের মধ্যে একটি নির্দিষ্ট দূরত্বে আঘাত করে তার সূক্ষ্ম হিসাব নির্ণয় করতে সক্ষম।

আলো সাধারণত গ্লাস বা পানির মধ্য দিয়ে গেলে সামান্য ধীরগতি প্রাপ্ত হয় যেমনটা এই পরীক্ষায় করা হয়েছে। তবে নতুন এই পদ্ধতি কিছুটা জটিল।
নতুন এই মেকানিজম বলে আকৃতি বদলে যাওয়ার ফলে আলোর কিছু কণা সাভাবিক পথ থেকে বিচ্যুত হয়ে যায় ফলে অন্যান্য কণাগুলোর উপর এই প্রভাব পড়ে যা আলোর স্বাভাবিক গতিকে সামান্য পরিমানে কমিয়ে দেয়।

তবে এই গবেষণার ফল পদার্থবিজ্ঞানের মতবাদে আমূল কোন পরিবর্তন আনবেনা। কারণ এটা প্রাকৃতিক কোন ঘটনা নয়। কিন্তু এই গবিষণার ফলে বিজ্ঞানীরা এই তথ্য দিতে চেয়েছেন যে, ভবিষ্যতে ল্যাব গবেষণায় বা জ্যোতির্বিজ্ঞানের গবেষণায় এটা সর্বদা নিশ্চিত করতে হবে যে, আলোর উপর আকৃতিগত পরিবর্তনের কোন প্রভাব যেন না থাকে। কারণ তাতে পরীক্ষামূলক ফলাফলে ভুল হতে পারে। আলোর গতির উপর এই গবেষণার কথা “Science” নামক বিজ্ঞান সাময়িকীতে প্রকাশিত হয়েছে।

তথ্যসূত্র : Physics.org এবং BBC.

Article Tags:
Article Categories:
বিজ্ঞান