মিলিটারিবিহীন ১০টি রাষ্ট

by
Mar 26, 2015
156 Views
Comments Off on মিলিটারিবিহীন ১০টি রাষ্ট

যে কোন রাষ্ট্রের নিরাপত্তার জন্য মিলিটারি বাহীনি একটি  খুবই গুরুত্বপূর্ণ অংশ। কিন্তু তা স্বত্বেও পৃথিবীতে এমন কয়েকটি রাষ্ট্র আছে যে সব রাষ্ট্রে কোন মিলিটারি বাহিনী নেই। আসুন জেনে নিই সেই রাষ্ট্রগুলো কি কি।

১) ভ্যাটিকান সিটি(Vatican City): এই রাষ্ট্রটিকে আমি আপনি সবাই বিশ্বের ক্ষুদ্রতম রাষ্ট্র হিসেবে জানি যার আয়তন মাত্র ১১০ একর বা ০.৪৪ বর্গকিলোমিটার। ভ্যাটিকানের নিজস্ব সেনাবাহিনী আছে, যার নাম সুইস গার্ড; এর সদস্যসংখ্যা প্রায় ১০০। কিন্তু এই সেনাবাহিনী শুধু ধর্মীয় অনুষ্ঠানগুলোতে কার্যকর, রাষ্ট্রের ক্ষেত্রে এদের কোন ভূমিকা নেই। তাই এটি একটি নিরপেক্ষ রাষ্ট্র।

২) নাউরু (Nauru): এটি বিশ্বের ক্ষুদ্রতম স্বাধীন প্রজাতন্ত্র এবং একমাত্র দেশ যার কোন রাজধানী নেই। এই দেশটির কোনো সেনাবাহিনী নেই। অস্ট্রেলিয়া সেনা সরবরাহ করে থাকে এই দেশটির জন্য, তাও প্রয়োজনের সময়। দেশটির আয়তন নিতান্তই ২১ বর্গকিলোমিটার।

৩) কোস্টারিকা (Costa Rica): কোস্টারিকার দক্ষিণ আমেরিকার একটি রাষ্ট্র যার আয়তন মাত্র ৫১ বর্গকিলোমিটার। কোস্টারিকা পৃথিবীর প্রথম দেশ যেটি তার সেনাবাহিনীর অবসান ইচ্ছামূলকভাবে ঘটিয়েছে ১৯৪৮ সালের পর থেকে।

৪) সামোয়া (Samoa): ১৭১ বর্গকিলোমিটার আয়তন বিশিষ্ট এই রাষ্ট্রটিকে স্বাধীন হওয়ার আগে নিউজিল্যান্ড দেখাশোনা করতো। এখনো এই রাষ্ট্রটির নিজস্ব কোন সেনাবাহিনী নেই, প্রয়োজন হলে নিউজিল্যান্ড সেনাবাহিনী দিয়ে সাহায্য করে থাকে।

৫) মরিশাস (Mauritius): মরিশাস আফ্রিকার একটি দ্বীপ রাষ্ট্র যার রাজধানীর নাম পোর্ট লুইস। সামান্য সংখ্যক পুলিশ বাদে দেশটিতে কোনো সেনাবাহিনী নেই।

৬) মার্শাল দ্বীপপুঞ্জ (Marshall Islands): ১৮১ বর্গকিলোমিটার আয়তন বিশিষ্ট এই রাষ্ট্রটি ওশেনিয়া মহাদেশের অন্তর্ভুক্ত যা অনেকগুলো দ্বীপ নিয়ে গঠিত। মজার বিষয় হলো ১৯৪৬ সাল থেকে ১৯৫৮ সাল পর্যন্ত আমেরিকা ৬৭ বার পারমাণবিক পরীক্ষা চালায় এই দ্বীপে। জন্ম থেকেই এই দেশটির নিজস্ব কোনো সেনাবাহিনী নেই, লাগলে বিপদের দিনে ইউ এস নেভি সাহায্য দিয়ে থাকে।

৭) গ্রেনাডা (Grenada): এটি ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জে অবস্থিত একটি দ্বীপ রাষ্ট্র যার আয়তন ৩৪৪ বর্গকিলোমিটার। ১৯৮৩ সাল থেকে এই দেশটিতে কোন নির্দিষ্ট সেনাবাহিনী নেই।

৮) কিরিবাতি (Kiribati): মাত্র ৭২৬ বর্গকিলোমিটার আয়তনের এই দেশটি ওশেনিয়া মহাদেশের অন্তর্গত। এই দেশের সংবিধানে পুলিশ বা কোনো প্রকার সেনাবাহিনী প্রতিষ্ঠা কড়াকড়িভাবে নিষিদ্ধ।

৯) পালাউ (Palau): রিপাবলিক অব পালাউ পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরের একটি স্বাধীন প্রজাতান্ত্রিক দ্বীপরাষ্ট্র যা প্রায় ২০০টি দ্বীপ নিয়ে গঠিত। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে একটি চুক্তির মাধ্যমে দেশটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শাসনাধীনে আসে। এই দেশটিতে কোন সামরিক বাহিনী নেই, যদি দরকার হয় যুক্তরাষ্ট্র সেনা সরবরাহ করে থাকে এই দেশটির জন্য।

১০) লিশটেনস্টাইন (Liechtenstein): মধ্য ইউরোপের, জার্মানভাষী সবচেয়ে ক্ষুদ্র সাধীন রাষ্ট্র, যা প্রতিবেশী সুইজারল্যন্ডের মত নিরপেক্ষ রাষ্ট্র। বর্তমানে প্রিন্স দ্বিতীয় হান্স-আডাম, মাত্র ১৬০ বর্গকিলোমিটার বিশিষ্ট এই ত্রিভুজাকৃতির রাষ্ট্রটির অধিপতি। ১৮৬৮ সাল থেকে লিশটেনষ্টাইনে কোন সামরিক বাহিনী নেই। এর আগে ৮০ জন সেনা দেশটির নিরাপত্তায় নিয়োজিত ছিল যা ১৮৬৮ সালে দেশে বাতিল ঘোষণা দেওয়া হয়।

তথ্যসূত্রঃ ইউটিউব ও উইকিপিডিয়া।

Facebook Comments
 
Article Categories:
সেরা দশ