আমরা নিজেকে নিজে কেন সুড়সুড়ি দিতে পারিনা, জেনে নিন আসল রহস্য

by
Apr 6, 2015
119 Views
Comments Off on আমরা নিজেকে নিজে কেন সুড়সুড়ি দিতে পারিনা, জেনে নিন আসল রহস্য
0 0

সবার আগে জেনে নিই সুড়সুড়ি বা কাতুকুতু কী…

১৮৯৭ সালে দুই জন বিখ্যাত সাইকোলজিস্ট জি, স্ট্যানলি হল এবং আর্টার অলিন “সুড়সুড়ি” প্রধান দু’ধরণের বলে উল্লেখ করেন। তারা প্রথম ধরণের সুড়সুড়ি এর নাম দিয়েছেন “নিসমেসিস” যেগুলো আমাদের চামড়ায় খুবই পাতলা স্পর্শের মাধ্যমে উৎপন্ন হয় এবং এগুলো সাধারণত আমাদের মধ্যে হাসির উদ্রেক করে না। অপর ধরণের সুড়সুড়ি কে তারা নাম দিয়েছেন “গার্গালেসিস” যা আমাদের স্পর্শকাতর জায়গা গুলোতে মোটামুটি ভারী স্পর্শের মাধ্যমে সৃষ্টি হয়। এই ধরণের সুড়সুড়ি আমাদের মধ্যে প্রচন্ড হাসির উদ্রেক করে। যাই হোক, আমাদের মধ্যে যদি কেউ সুড়সুড়ি সৃষ্টি করে তাতে আমরা কেউ কেউ অট্টহাসিতে ফেটে পড়ি আবার কারো কারো কাছে এটা বিরক্তির ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়।


সুড়সুড়ি
ধারণা করা হয়, গ্রীক বিজ্ঞানী এরিস্টটল সর্বপ্রথম এই প্রশ্নটি তুলেছেন যে “কেন আমরা নিজেকে নিজে সুড়সুড়ি বা কাতুকুতু দিতে পারি না। এইবার কারণ জানার পালা…

আমাদের শরীরে যদি কেউ সুড়সুড়ি লাগিয়ে দেয় তবে আমরা অস্বাভাবিকভাবে অনৈচ্ছিক মুভমেন্ট বা নড়াচড়া করে থাকি। আপনারা জানেন আমাদের শরীরে দু’ধরণের মুভমেন্ট বা নড়াচড়া আমরা করে থাকি এগুলো যথাক্রমে ঐচ্ছিক ও অনৈচ্ছিক টিশ্যুর মাধ্যমে হয়।

এই মুভমেন্ট গুলোকে নিয়ন্ত্রণ করে আমাদের মস্তিস্কের পিছনের অংশ যার নাম “সেরেবেলাম”। আরো নিখুঁতভাবে বললে হবে, আমাদের মস্তিস্কের দুটি অংশ নিয়ন্ত্রণ করে; সুড়সুড়ি লাগলে আমাদের মুভমেন্ট গুলো কেমন হবে! এই দুটি অংশ বিশেষ দুটি প্রসেস বা প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এই কাজ করে থাকে এগুলো যথাক্রমেঃ

১। সোমাটো সেন্সরি কর্টেক্স প্রসেস এবং

২। এন্টেরিওর সিংগ্যুলেট কর্টেক্স প্রসেস

রহস্য হল কেউ যদি আমাদের অনিচ্ছায় সুড়সুড়ি লাগিয়ে দেয় তবে মস্তিস্কের এই দুটি অংশ তাদের স্ব স্ব প্রক্রিয়ায় অত্যধিক পরিমাণে রেসপন্স করে বা সাড়া দেয়। কিন্তু যখন আমরা নিজেরাই তা করার চেষ্টা করি আমাদের ব্রেইন আগে ভাগে জেনে যায় এবং এই দুটি অংশ খুব কম রেসপন্স করে বা কাজ করে।

Article Categories:
বিজ্ঞান