ইতিহাসের বিতর্কিত কিছু দলিল ফাঁস নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য!

by
Apr 29, 2017
87 Views
Comments Off on ইতিহাসের বিতর্কিত কিছু দলিল ফাঁস নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য!
0 0

ক) ২০০৯ সালে ইস্ট অ্যাংলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাইমেট রিসার্চ ইউনিট ও বিভিন্ন জলবায়ু বিজ্ঞানীর মধ্যে আদান-প্রদান হওয়া হাজার হাজার ইমেইল ও ফাইল হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে ফাঁস করা হয়। জলবায়ু পরিবর্তন তত্ত্বের বিরোধীরা একে ব্যবহার করে বৈশ্বিক উষ্ণতার উপর গবেষণাকে একটি ষড়যন্ত্র হিসাবে আখ্যায়িত করেন। ঘটনাটি ‘ক্লাইমেটগেট‘ নামে পরিচিতি লাভ করে।

খ) ২০১৩ সালে দ্য গার্ডিয়ান পত্রিকার মাধ্যমে মার্কিন ন্যাশনাল সিকিউরিটি এজেন্সি (NSA) পরিচালিত নজরদারি কর্মসূচির কথা ফাঁস করে দেন সিআইএর সাবেক সদস্য এডওয়ার্ড স্নোডেন। তুমুল আলোচিত-সমালোচিত এ কর্মসূচির নাম  ছিল ‘প্রিজম‘।

গ) ১৭৭৩ সালে ম্যাসাচুসেটসের একজন রয়েল গভর্নরের লেখা কয়েকটি চিঠি ফাঁস হয়ে যায়। এর পেছনে বেঞ্জামিন ফ্রাঙ্কলিনের পরোক্ষ ভূমিকা ছিলো। এ চিঠিগুলোই শেষ পর্যন্ত ব্রিটেনের বিরুদ্ধে মার্কিন কলোনিগুলোর যুদ্ধকে উসকে দেয়। ইতিহাসে এ ঘটনা পরিচিত ‘হাচিনসন লেটারস অ্যাফেয়ার‘ নামে।

ঘ) ১৯৭২ সালে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সনের নির্বাচনী প্রচারণার সাথে জড়িত পাঁচ ব্যক্তিকে ডেমোক্র্যাট দলের সদর দপ্তর থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। অবৈধ গোপন টেপরেকর্ডার স্থাপন করছিলেন তারা। এ কেলেংকারির কারণে শেষ পর্যন্ত প্রেসিডেন্ট নিক্সন পদত্যাগ করতে বাধ্য হন। এটি ‘ওয়াটারগেট‘ ক্যালেঙ্কারি নামে পরিচিত।

ঙ) ইরাক যুদ্ধে বহু নিরীহ মানুষ হত্যার তথ্য গোপন রাখা সত্ত্বেও ২০১০ সালে উইকিলিকসের মাধ্যমে প্রকাশিত আর্মি ফিল্ড রিপোর্টে বিষয়টি স্পষ্ট হয় সারা বিশ্বের কাছে। এ তথ্যগুলো ‘ইরাক ওয়ার লগস’ নামে পরিচিত।

চ) ২০০৩ সালে কূটনীতিবিদ জোসেফ উইলসন ইরাক যুদ্ধের বৈধতাকে প্রশ্ন করে একটি লেখা প্রকাশ করার পর সিআইএ এজেন্ট হিসাবে তাঁর স্ত্রীর পরিচয় ফাঁস হয়ে যায়। বিতর্কিত এ ঘটনাকে ‘প্লেম অ্যাফেয়ার‘ বলা হয়।

ছ) দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় জার্মানির বিরুদ্ধে যুদ্ধ কৌশল হিসাবে মিত্রশক্তি কিছু গোপন দলিল ছেড়ে দেয়। নকল দলিলগুলোতে গ্রিস ও সার্ডিনিয়া আক্রমণের পরিকল্পনা সাজানো হয়েছিলো। জার্মানরা এর উপর ভিত্তি করে নিজেদের প্রস্তুত করে, যা শেষ পর্যন্ত বিফলে যায়। ইতিহাসের বিখ্যাত এ পরিকল্পনার নাম – ‘অপারেশন মিনসমিট‘।

জ) ‘তিয়েনআনমেন পেপারস’ হলো চীনা কমিউনিস্ট পার্টির কিছু গোপন দলিল। একটি ঐতিহাসিক ঘটনাকে কেন্দ্র করে এ দলিলগুলো তৈরি করা হয়েছিলো। ২০০১ সালে এগুলো ইংরেজিতে প্রকাশিত হয়। মূলত ১৯৮৯ সালের বিদ্রোহ তিয়েনআনমেন পেপারসের ভিত্তি।

ঞ) ২০০৭ সালে উইকিলিকস একটি ভিডিও প্রকাশ করে। ভিডিওতে দেখা যায়, একটি অ্যাপাচি হেলিকপ্টার থেকে রয়টার্স ফটোগ্রাফার নামির নূর এলদিন ও আরো দশজনকে গুলি করে হত্যা করা হচ্ছে। ভিডিওটি উইকিলিকসের কাছে হস্তান্তরের জন্য মার্কিন সেনাবাহিনীর একজন বিশ্লেষককে গ্রেপ্তার করা হয়। এই বিশ্লেষকের নাম ‘ব্র্যাডলি ম্যানিং’।

ত) ১৯৭১ সালে মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগের কিছু অত্যন্ত গোপন দলিল নিউ ইয়র্ক টাইমস পত্রিকা প্রকাশ করে। এ দলিলগুলোতে ১৯৪৫-১৯৬৭ সাল পর্যন্ত ভিয়েতনামে মার্কিন তৎপরতার কথা উল্লেখ করা হয়েছিলো। কেলেংকারির নাম – ‘পেন্টাগন পেপারস

তথ্যসূত্রঃ www.quizards.co

 

Article Categories:
বিশ্বজগৎ